কর্ম্ম নিয়ে অনুশ্রুতি ২য় (১-৫০)

অনুশ্রুতির ২য় খন্ডে “কর্ম্ম” শিরোনামে পৃষ্ঠা ৯৩ – ১২২ পর্যন্ত মোট ১৫৩ টি বাণী রয়েছে ।
নিচে ১ – ৫০ নং বাণীসমূহ দেয়া হলো।

করতে-করতে যে-জন যায়,
কৃপার আশিস্ সেই তো পায় । ১।
শুনলে অনেক—করলে না,
ঠকলে কত—বুঝলে না । ২।
হেলায়-ফেলায় করলে কাজ
কাজের মাথায় পড়ে বাজ । ৩।
না-করলে বাড়ে না গুণ,
কেবল বাজে কথার ঝুন । ৪।
যা'-যা' লাগে প্রয়োজনে,
সে-সব রেখো যথাস্থানে । ৫।
কাজের কী ধরণ ? —
বুঝে-সুঝে শুভ-সুন্দরে
ত্বরিত নিষ্পাদন । ৬।
কৰ্ম্মটাতে নাম্ আগে তুই
জ্ঞানের চর্চ্চার সাথে-সাথে,
অনুশীলনী তৎপরতায়
হ' রে কুশল দক্ষ তা'তে । ৭।
তথ্য শুনে কী হবে তোর !
তত্ত্ব তো'তে ব'র্ত্তে উঠুক,
দেখে-ক'রে-বুঝে' তত্ত্ব
বাস্তবতায় বোধে আসুক । ৮।
অদৃষ্ট ভেবে কী হবে তোর
দৃষ্ট যা' তা'র করলি কী ?
দৃষ্ট যা' তা'র করলে সুসার
অদৃষ্ট কি হয় মেকী ? ৯।
আগ্রহটাকে ঊর্জ্জী ক'রে
ঐটি ক'রে কৃতি-আধান,
সার্থকতায় সব বিনিয়ে
বিহিত নিষ্পাদনে আন্ । ১০।
বিবেক দিয়ে বিচার ক'রে
দেখে-শুনে সকল দিক্,
ধরবি যা' তুই করবি সেটা
ঠ'কে না হয় বলতে—ধিক্। ১১।
বুঝে-প'ড়ে ঠিক ক'রে নাও
মাটি শুদ্ধ সবে
সমীচীন যা' ক'রে চল
দীপ্ত অনুভবে । ১২।
যে-সুবিধা যোগ্যতাকে
ঢিলে অবশ করে,
সে-সুবিধায় লোভ করিস্ না
ডাইনী ওতে ধরে । ১৩।
অন্তরেতে চিন্তা অঢেল
বাস্তবে নাই রূপ,
আর কিছু নয়—ওগুলি সব
শুধুই ভাবের কূপ। ১৪।
চরিত্র হেন ধন থাকতে
ভাগ্যের অভাব কী ?
আলস্য হেন গুণ থাকতে
দুঃখের অভাব কী ? ১৫।
সুযোগ যদি হারাস্ কেবল
অবহেলা আর অলসতায়,
অনুকম্পা অবশ হবে
জাগবে কি আর সৎ দীপনায় ? ১৬।
আলোচনা শুনলি কত
নিদেশ কথাও নয়কো কম,
অনুশীলন তো করলি না আর
বাক্য-বাগীশ বেকুব সঙ্ । ১৭।
বাঁচা-বাড়ার তপ-তালিমে
নিখুঁত চলবি কবে ?
ব্যর্থ আশা, ব্যর্থ আসা—
টানছ বোঝা ভবে । ১৮।
ধৃতি-কথা বহুত জান
কর না কিছু কাজে,
এমন জানায় কী-ই বা হবে
জানাটা শুধু বাজে । ১৯।
ভাল করলেও মন্দ ফলে
মন্দে ভাল ফল,
ঘটলে এমন দেখিস্ সে ফল—
প্রায়ই দুর্ব্বল। ২০।
অভিনয় তোর যেমনতর
এ দুনিয়ার নাট্যশালায়
উচ্ছলতাও তেমনতর
সাঙ্গোপাঙ্গও তেমনি দাঁড়ায় । ২১।
হাজার ভড়ং করিস্ না ক্যান্
করণটাকে দিয়ে বাদ—
রকম-সকম যা'ই করিস্ না,
পুরবে নাকো মনের সাধ। ২২।
ধরছ করছ অশেষ-ভাবে
নিষ্পাদনে পারছ না,
বুঝছ না কি—পারায় গলদ
তেমন তুকে চলছ না ! ২৩।
গা-ঢিলেমি আলসেপনা
সে-সব পুষে রাখিস্ না,
কৃতিমুখর আগ্রহটা
লাগাতে কাজে ভুলিস্ না। ২৪।
দায়িত্ব নিলে, ভরসা দিলে
করলে নাকো কাজে,
বুঝলে না কি, করলে কী পাপ—
সবই তোমার বাজে ? ২৫।
শুভকর্ম্মের কথা দিলে
করবি সেটা অচিরাৎ,
শুভ কথা ভাঙ্গলে পরে
চলন হবে চিৎপাত । ২৬।
যা' আছে কাজ সবগুলিকে
ত্বরিত কর নিষ্পাদন,
নইলে তুমি কোন্ ফাঁকেতে
হারিয়ে ফেলবে শুভক্ষণ । ২৭।
ভেবে-চিন্তে হিসেব ক'রে
করার যা' সব ক'রেই যাস্,
ধৃতিমত্ত কৃতি নিয়ে
নন্দনাতে আরো ধাস্ । ২৮।
পরিণামটি চিন্তা ক'রে 
যা' করবার করিস্ তা',
দেখিস্ যেন বেকুব চলায়
ক্ষুব্ধ না হয় সফলতা । ২৯।
কোন-কিছু করতে গেলেই
কেন করবে ভেব' তা',
করলে পরে কী ফল হবে
না করলে কী হবে না । ৩০।
নিষ্ঠা যদি চেষ্টাহারা
তেষ্টা তা'র কোথায় ?
স্বার্থসেবী তৎপরতায়
জীবন কেটে যায় । ৩১।
প্রেষ্ঠজনা চেলেই তো দাও
কৰ্ম্মভৃতি সাধো না,
কোথায় কেমন কী ক'রে হয়
হয় না তা'তে বোধনা । ৩২।
অন্যে যেটা করতে নারে
পারিস্ তো তা' তুই-ই কর,
শুভের পথে চ'লে ক'রে
শুভ যা' তা'ই আগলে ধর্। ৩৩।
ক'রে-ক'রে চ'লে-চ'লে
করতে থাক্ তুই এস্তামাল,
হাতে-কলমে বুঝে-ক'রে
পারবি চলতে ধ'রে তাল । ৩৪।
যা' করতে যা'-যা' লাগে
হাতের কাছেই রাখিস্ তা',
অব্যবস্থ বেকুব চলায়
কাজটা যেন না হয় বৃথা । ৩৫।
যে জিনিস তোর লাগবে পরে
প্রস্তুত রাখিস্ আগেই তা',
ক্ষিপ্র তালে কর্ সমাধান
আসবে কমই ব্যর্থতা। ৩৬।
কী-কাজ কত এগিয়ে রাখলে
সমাধানেও সুবিধা হয়,
সুহিসাবে ঠিক কর তা'—
নিষ্পাদনে ক্ষিপ্র জয়। ৩৭।
দক্ষ-চতুর নিষ্ঠা নিয়ে
হাত দিবি তুই কাজের গায়ে,
জোগাড়-টোগাড় সব ক'রে তা'র
কর্ সমাধান ক্ষীপ্র পায়ে। ৩৮।
অনেক কিছু লুকিয়ে থাকে—
হ'য়ে কাজের অন্তরায়,
ক্ষিপ্র কর্ তুই তা'র সমাধান
অন্ততঃ যা' নইলে নয় । ৩৯।
ত্বরিত কাজের করতে জোগাড়
যা'-যা' করলে হবেই তা',
নির্ব্বাহ তা' চাই-ই করা
তবেই থাকবে সততা । ৪০।
ত্বরিত্ব করতে যা' হবে তোর
জানার পথে তাই করিস্,
খুঁজে-পেতে করতে গেলে
হয় না ত্বরিত তা' বুঝিস্। ৪১।
পুঙ্খানুপুঙ্খ ক'রে দেখ
কোথায় কেমন হয়,
মিলিয়ে সেটা বাস্তবেতে
করলে—প্রায়ই জয় । ৪২।
শুভ চাওয়া শুভ করা
সত্তারই এই ধৰ্ম্ম,
শুভর পথে চলতে থাকা
এইতো বিহিত কৰ্ম্ম । ৪৩।
শুভ কিছু করতে গেলেই
পণ্ড হওয়ায় রাখিস্ চোখ,
পণ্ডতাকে নিরোধ ক'রে
ফুটাস্ নিষ্পাদনের ঝোঁক । ৪৪।
সব ব্যাপারেই নজর রাখিস্ 
শুভ আসে কোন্ পথে,
দক্ষ-চতুর বোধ নিয়ে তুই
থাকিস্ চলিস্ সেই মতে । ৪৫।
কর্ত্তব্য কিছু এলে মনে
বোধ-বিবেকী বিবেচনা—
বাস্তবতায় সাবুদ হ'লে
তবে তো হয় তা'র ঊর্জ্জনা ! ৪৬।
সৎ কিছু যা' করবে ব'লে
রেখেছ অন্তরে—
ক'রোই ত্বরিত নিষ্পাদন
নইলে আপদ ধরে । ৪৭।
সহজ শুভ যা' দেখবি তুই
করবি সেটা তেমনি তোড়ে,
শুভের আশিস্ তেমনি পাবি
ধন্য হ'বি তেমনি ক'রে । ৪৮।
করবি কী তুই কাজ—
ক্ষিপ্রতাহীন নিষ্পাদনায়
প'ড়েই থাকে বাজ। ৪৯।
ত্বরিত যদি না করিস্ কাজ
প্রতিষ্ঠা তোর হবে না,
সময় যদি যায়ই ব'য়ে
প্রয়োজনে লাগবে না। ৫০।