যাজন নিয়ে অনুশ্রুতি ২য়

অনুশ্রুতির ২য় খন্ডে “যাজন” শিরোনামে পৃষ্ঠা ৪১ – ৪৮ পর্যন্ত মোট ৩৯ টি বাণী রয়েছে। নিচে বাণীসমূহ দেয়া হলো।

তীব্র তালে ধর গান 
নেচে উঠুক সবার প্রাণ । ১।
নিজের স্বার্থের সেবা নিয়ে
ভাবছে যা'রা করবে সুখ,
ভ্রান্ত তা'দের উথলে তোল
পরিচর্য্যী ক'রে বুক । ২।
নিজের নিয়েই বিবশ মনে
যা'রাই কেবল প'ড়ে থাকে,
পরিবেশের চর্য্যায় লাগা—
ভরসা দিয়ে তা'দের বুকে । ৩ ।
অলস যা'রা অবশ যা'রা
হোক্ না তা'দের ভাঙ্গা বুক,—
ইষ্টনেশায় কৃতির রোলে
তোল্ তো উথলে তা'দের সুখ । ৪।
যে-ধুয়ো নিয়ে থাকবি রে তুই
চিন্তা, চলন, কথায়, কাজে,
লাগলে ভাল ধরবে লোকে,
চলবেও ক্রমে অমনি ধাঁজে । ৫।
ভাল যাজন ভালই তো সে
আরো ভাল সৎ-আচারী,
আগল-ভাঙ্গা-হৃদয় যা'রা
প্রবুদ্ধ হয় তা'দের ধরি' । ৬।
জীবনটাকে চাষ ক'রে তুই
সম্বর্দ্ধনায় উসকে তোল,
দীপ্ত মুখে তৃপ্ত বুকে
উঠুক ফুটে অমর রোল । ৭।
প্রত্যেক তুমি, প্রত্যেক আমি,
প্রত্যেকেরই জীবনধৃতি,
এরই কিন্তু ব্যতিক্রমে
জনন-জীবন পায়ই মৃতি । ৮।
সুস্থ থাক্ তুই, সুস্থ রাখ্ তুই,
সুস্থি বিলা' সব অন্তরে,
চল্ ক'রে তুই সুস্থ সবায়
হৃদ্য চর্য্যায় সবায় ধ'রে । ৯।
ছড়িয়ে পড়্ রে সবার মাঝে—
সবার বুকে একই টান—
বিষ্ণুতেজা হ'য়ে উঠে
তৃপণদানে সাধ্ রে প্রাণ । ১০।
চেতন স্বভাব, চেতন বৃত্তি,
চেতন দ্যুতি ল'য়ে চল্,
চেতনতার উৎসারণে
বাড়ুক বিবেক, বাড়ুক বল । ১১।
চেতন ভাবে দীপ্ত হ'য়ে
চেতন প্রদীপ হ' রে তুই,
সবারে তুই উর্ব্বর ক'রে
ফেল্ না চ'যে জীবন-ভূঁই । ১২।
সঙ্গতি সব অটুট ক'রে
সঙ্গতির ঐ চর্য্যা-সেবায়,
পারস্পরিক অনুরাগে
উচ্ছলি' তোল্ যত সবায় । ১৩।
দৃষ্টিরে তোর নিখুঁত রাখিস্ 
কৃষ্টি রাখিস্ বেশ তাজা—
আচার-ব্যাভার ক'রে এমন,
উৎসারণায় গাল বাজা । ১৪।
যা' করিস্ তুই—জীবনধৃতি
সবার মূলে আছে যা',
পরিচর্য্যায় শিষ্ট রেখে
সবারে তুই রাখ্ তাজা । ১৫।
উৎসারণী উদ্দীপনায়
সবা'কে তুই চেতিয়ে রাখ্,
উৎসৃজনী কৃতিচর্য্যায়
অশিষ্ট যা' পালিয়ে যাক্ । ১৬ ।
ভাববৃত্তির উচ্ছলতায়
উসকে তুলে চর্য্যা-টান,
নিষ্ঠানিপুণ চর্য্যাতে কর্
ইষ্টে প্রাণপ্রতিষ্ঠা-দান । ১৭।
ঊর্জ্জী যজন, ঊর্জ্জী যাজন,
ঊর্জ্জী-মধুর নিষ্ঠা-সেবা,
এমন গুণীর সঞ্চারণায়
বাড়েই বুকে ঊর্জ্জী বিভা । ১৮।
বলবি কইবি ভাষণ দিবি
সব সময়েই সত্তা ধ'রে,
কেমন চলায় সত্তা বাঁচে
জেনে জানিয়ে নিটোল ক'রে । ১৯।
পরের সত্তা দেখে যে-জন
আপন সত্তার মতন ক'রে,
ধ'রে ক'রে সৎ-দীপনায়
তুলতে পারে তাকে ধ'রে । ২০।
নিষ্ঠাবিপুল অনুচর্য্যা 
ধকধ্বকিয়ে উঠুক জ্ব'লে,
হৃদয় দিয়ে অন্তরেরই
তৃপ্তি-বারি দে' না ঢেলে । ২১।
উঠুক লোকে দীপ্ত হ'য়ে
সিক্ত হ'য়ে প্রীতির টানে,
হামবড়াইয়ের কাজ কি রে আর
স্বস্তি আসুক প্রাণে-প্রাণে । ২২।
উথলে উঠুক প্রাণন-মলয়
প্রাণে-প্রাণে যাক্ না ব'য়ে,
সহ্য-ধৈর্য্য-স্থৈর্য্য নিয়ে
উচ্ছলায় তা' দে বিছিয়ে । ২৩ ।
গ'র্জ্জে উঠুক স্বস্তি বিপুল
তরুণ-স্রোতা কৃতি নিয়ে,
শক্তি বাড়ুক, ধী বাডুক তোর
কর্ রে ভাল হৃদয় দিয়ে । ২৪।
শিবের শিঙা গ'র্জ্জে উঠুক
রংকারেরই রারং-নাচে,
নিথর যা'রা জেগে উঠুক
মুহ্য যা'রা উঠুক বেঁচে । ২৫।
দেশ ও পাত্র, কাল-পরিবেশ,
বুঝিয়া-সুঝিয়া সব বিশেষ,
আদর্শকে অটুট রেখে
তৃপ্তি সবায় দিবি অশেষ । ২৬।
সঞ্চারণায় সৎ-শুভকে 
সবার ভেতর চারিয়ে দিয়ে,
উথলে হৃদয় যা'তে ওঠে
চল্ না তেমন উতল হ'য়ে । ২৭।
থাকবি যেথায় ঢালবি সেথায়
দীপন-দীপা তৃপ্তি-ফাগ,
আশেপাশের জীবনগুলিত্
ছড়িয়ে দিবি তৃপ্তি-রাগ । ২৮।
অবস্থা, কথা, কোন কাজ
কোথায় গিয়ে কেমন দাঁড়ায়,
ঝলক-বোধের পলক নিয়ে
দেখতে পারিস্ যা'তে তা'য়,
এমনি ক'রেই লহমায় তুই
এঁচে নিবি তেমনতর,
বিষয়-কর্ম্মের কোন্ সংঘাতে
হ'তে পারে কেমন দড় । ২৯।
সার্থকতা কোথায় কেমন
দেখে নিবি রকমে তা'র,
স্বস্তি যা'তে বজায় থাকে
সুস্থি আনে সম্বৃদ্ধি আর । ৩০।
সৎ কথা বা ভাল কাজ
অন্যে খারাপ বলছে যা',
চলা-বলায় বুঝিয়ে দিও
সবার পক্ষেই ভাল তা' । ৩১।
বাধা যদি পাস্ কোথাও
বুঝে-সুঝে সমীচীন,
স্বস্তিনিপুণ করায়-বলায়
নিরাকরণে কর্ বিলীন । ৩২।
সুকৌশলের কুশল তালে
তৃপ্তি-স্ফীত ক'রে মন,
কাজে বাধা এলেই সেটার
করবি সহজ নিরাকরণ । ৩৩।
একটুখানি বাস্ না ভালো 
কুটিল কালো তাড়িয়ে দিয়ে,
সবটা হহৃদয় কর্ না আলো
ক্লেশসুখের আহুতি নিয়ে । ৩৪।
বচনে তুই যতই বলিস্ 
আচার-ব্যাভার থাকলে ঠিক,
সঞ্চারণী সন্দীপনায়
অন্তরে জাগে প্রেষ্ঠ-ঋক্ । ৩৫।
অন্তরের ভাব যেথায় যেমন 
চালচলনও তেমনি,
সঞ্চারণাও তেমনি চলে
স্বার্থ-চাহিদা যেমনি । ৩৬।
সন্দীপনী সঞ্চারণা 
বাড়ায় নিত্য হৃদয়-বল,
ফুল্লচেতা স্বাস্থ্যচর্য্যাই
হয়ই যে তা'র ধৃতিস্থল । ৩৭।
উদ্দীপনী উদ্বোধনায়
অকাট্য অটুট যুক্তিবাদ,
কৃতিচৰ্য্যী তপ-দীপনায়
আনেই কিন্তু স্বস্তি-সাধ । ৩৮।
উর্জ্জীতেজা বীর্য্য নিয়ে
অনুশীলনী কৃতি-পায়,
অটুট নিষ্ঠায় সব ক'রে তুই
চলতে থাকিস্ সূচর্য্যায়;
বিলিয়ে দিবি সব হৃদয়ে
বাঁচাবাড়ার মন্ত্রগান,
নিষ্ঠা নিয়ে শুনে, ক'রে
উঠুক নেচে সবার প্রাণ;
যাজনমুখর ঐ চলনে
লোকের প্রয়োজনটি বুঝে,
চল্ ওরে তুই, বহুত মানুষ
ধন্য হবে ইষ্ট পূজে;
শক্তি পাবে, বৃদ্ধি পাবে
হৃদয়ে পাবে সুবিস্তার,
ধরার বুকে স্বর্গ এসে
তৃপ্তি দেবে বুকে সবার । ৩৯।