জ্ঞানের …. নেই।-ব্যাখ্যা

সত্যানুসরণ-এ থাকা শ্রীশ্রীঠাকুরের বাণীটি হলো:

“জ্ঞানের মত আর দৃষ্টি নেই।”

পরমপূজ্যপাদ শ্রীশ্রীবড়দা কর্তৃক ব্যাখ্যা :

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—দৃষ্টি দু’প্রকার। এক, বহিঃদৃষ্টি, অপরটি অন্তরদৃষ্টি। সাধারণভাবে আমরা চোখ দিয়ে যা দেখি তাকে বহিঃদৃষ্টি বলা যায়। আর যা তৃতীয় নয়ন বা জ্ঞানের সাথে দেখতে পাই তাই অন্তরদৃষ্টি।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব জিতেনদাকে উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে দিতে বললেন।

জিতেনদা—শীতের রকমারি ফুল ফুটেছে বাগানে, দেখতে বড় ভাল লাগছে। ডালিয়া ফুল বেশি দৃষ্টি আকর্ষণ করে। একটা ডালিয়া ফুল তুলতে ইচ্ছা হ’ল কিন্তু ছিঁড়তে গিয়েও কোথায় যেন বাধা পেলাম। আর তোলা হল না। বিচার বিশ্লেষণ দ্বারা মনে হল, তোলা ঠিক নয়। নিজের সাময়িক আনন্দের জন্য যে ফুলটা পনেরো দিন ফুটে শোভা বর্দ্ধন করতে পারে, তাকে এভাবে নষ্ট করাটা ঠিক হবে না। এ ছাড়া গাছটা ব্যথা পাবে। এই যে জ্ঞানরূপ দৃষ্টি আমাকে অন্তর থেকে বাধা দিল, এটাই ঠিক, ফুল তুলতে আর পারলুম না। তাই ঠাকুর বলছেন—জ্ঞানের মত আর দৃষ্টি নেই।

[ তাঁর সান্নিধ্যে/তাং-১৩/৪/৭৭ ইং]

[প্রসঙ্গঃ সত্যানুসরণ পৃষ্ঠা ২৪৩]