তাঁকে অহং-এর …..হন। – ব্যাখ্যা

সত্যানুসরণ -এ থাকা শ্রীশ্রীঠাকুরের বাণীটি হলো:

তাঁকে অহং-এর কষ্টিপাথরে কষা যায় না, কিন্তু তিনি প্রকৃত দীনতারূপ ভেড়ার শিঙে খণ্ড-বিখণ্ড হন।

পরমপূজ্যপাদ শ্রীশ্রীবড়দা কর্তৃক ব্যাখ্যা :

শ্রীশ্রীপিতৃদেবের নির্দেশে আলোচনার জন্য প্রদীপ (পাল) পুনরায় পাঠ করে বলল—তাঁকে বলতে ইষ্টকে বোঝাচ্ছে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—এর আগের বাণীটা কি?

প্রদীপ আগের বাণীটি পড়ল—“সদগুরুকে পরীক্ষা করতে হ’লে তাঁর নিকট সঙ্কীর্ণ সংস্কারবিহীন হ’য়ে, ভালবাসার হৃদয় নিয়ে, দীন এবং যতদূর সম্ভব নিরহংকার হ’য়ে যেতে পারলে তাঁর দয়ায় সম্তুষ্ট হওয়া যেতে পারে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—তাহলে সদগুরুর কথা আছে।

প্রদীপ—কষ্টিপাথর দিয়ে সদগুরুকে পরীক্ষা করা যায় না।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—কষ্টিপাথর দিয়ে কি পরীক্ষা করে?

—সোনা।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—সোনা যেমন কষ্টিপাথরে বোঝা যায় পাকা না কাঁচা, তেমনটা অহং-রূপ কষ্টিপাথরে অর্থাৎ অহংকার নিয়ে তাঁকে বোঝা যায় না।—দেখি, সদগুরুকে ধরে আমার কত উন্নতি হয়েছে—এইরকম ভাব থাকলে তাঁর ভিতরে আমাকেই দেখব, তাঁকে জানতে পারব না।—দীনতারূপ ভেড়ার শিঙ মানে? ভেড়ার শিঙ কি করে?

প্রদীপ—ভেড়ার শিঙ হীরে কাটে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—দীনতা মানে নম্র, বিনয় ভাব। যেমন—আপনার কাছে এসেছি, আপনি দর্শন দিয়ে আনন্দিত হোন। এই রকম ভাব নিয়ে তাঁর নিকট গেলে তাঁকে বুঝতে পারব।

[পিতৃদেবের চরণপ্রান্তে/তাং-২৮/৫/৭৯ ইং]

[প্রসঙ্গঃ সত্যানুসরণ পৃষ্ঠা ৫৭]

[সদগুরুকে পরীক্ষা বিষয়ক সত্যানুসরণের সকল বাণী (ব্যাখ্যা সহ) দেখুন]