তুমি লতার স্বভাব … হবে।-ব্যাখ্যা

সত্যানুসরণ-এ থাকা শ্রীশ্রীঠাকুরের বাণীটি হলো:

তুমি লতার স্বভাব অবলম্বন কর, আর, আদর্শরূপ বৃক্ষকে জড়িয়ে ধর—সিদ্ধকাম হবে।

পরমপূজ্যপাদ শ্রীশ্রীবড়দা কর্তৃক ব্যাখ্যা :

শ্রীশ্রীপিতৃদেব ঝর্ণাকে আলোচনা করতে আদেশ দিলেন।

ঝর্ণা বাণীটি আরেকবার পাঠ করলে জিজেস করলেন—বল, লতা কী করে।

ঝর্ণা—গাছ, পাথর ইত্যাদিকে জড়িয়ে ধরে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—জড়িয়ে ধ’রে কী করে?

—ওপরে ওঠে।

—হ্যাঁ, তারপর? বাণীর অর্থ বুঝিয়ে দাও।

—আদর্শরূপ বৃক্ষকে জড়িয়ে ধরব। ফলে যা’ পেতে চাইছি তা’ পাব, আমার উদ্দেশ্য সিদ্ধ হবে।

—ঠিকই বলেছ। এবার দীপদ্যোতক বল।

দীপদ্যোতক চুপ ক’রে আছে দেখে শ্রীশ্রীপিতৃদেব বললেন—এরপর তো চতুর্থ শ্রেণীতে উঠবে।

দীপদ্যোতক—হ্যাঁ। ওপরে উঠবে, না নীচে যাবে?

—ওপরে যাব।

—তাতে উন্নতি হবে তো?

—আজ্ঞে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—লতার স্বভাব যেমন গাছকে জড়িয়ে ওপরের দিকে ওঠে আমরা তেমনি আদর্শরূপ বৃক্ষকে জড়িয়ে কোন্‌ দিকে যাব?

দীপদ্যোতক—ওপর দিকে।

—ওপর দিকে গেলে কী হবে?

—উন্নতি হবে।

শ্রীশ্রীপিতৃদেব—ঠাকুর বলছেন, স্বভাব লতার মত হো’ক, তাহ’লে আদর্শরূপ বৃক্ষকে জড়িয়ে ধরতে পারবে। আদর্শ কা’কে বলে?—যাঁকে সামনে রেখে আমরা তাঁর মত হবার চেষ্টা করি। একটু থেমে পুনরায় বললেন—ঠাকুর কা’কে বলছেন?—যে পড়ছে তাকে বলছেন। লতা যেমন গাছকে অবলম্বন ক’রে ওপরে ওঠে, তেমনি তুমিও আদর্শকে অবলম্বন ক’রে উন্নতির পথে এগিয়ে যাবে—তোমার উদ্দেশ্য সিদ্ধ হবে।

ক্ষণকাল পর জিজ্ঞাসা করলেন—কি ঝরু (ঝর্ণা)! দীপদ্যোতক যা’ বলল, ঠিক আছে?

কমল, সুচন্দন, মুক্তা ও গোপাকেও তিনি অনুরূপ প্রশ্ন করলেন। সকলেই সম্মতিসুচক উত্তর জানাল।

[ইষ্ট-প্রসঙ্গে/তাং-২৫/৯/৭৬ ইং]

[প্রসঙ্গঃ সত্যানুসরণ পৃষ্ঠা ২৭১]