যেমন ডালিম …. হবে না।

সত্যানুসরণ-এ থাকা শ্রীশ্রীঠাকুরের বাণীটি হলো:

যেমন ডালিম পাকলেই ফেটে যায়, তোমার অন্তরে সৎভাব পাকলেই আপনি ফেটে যাবে— তোমার মুখে তা’ প্রকাশ করতে হবে না।

পরমপূজ্যপাদ শ্রীশ্রীবড়দা কর্তৃক ব্যাখ্যা :

শ্রীকন্ঠদা—পাকা সৎভাব কেমন?

সতীশদা—সৎভাব এলে বাইরে প্রকাশ পায়—বিশ্বাস আসে—চেহারায় ফুটে বেরোয়।

শ্রীশ্রীবড়দা—সৎভাব মানে বুঝতে পারলাম না।

হেম তেওয়ারীদা—অস্তিবৃদ্ধির পথে চলাটাই সৎভাব। আমি যাতে ঠিক ঠিক হচ্ছি।

শ্রীশ্রীবড়দা—ঠিক ঠিক কি! হচ্ছিই। হওয়াটাই ঠিক ঠিক।

কেষ্টদা—চেহারা দেখলেই বোঝা যাবে।

বসাওনদা—অসৎভাব যেমন ঠাকুর বলেছেন চোখেমুখে ফুটে বেরোয়।

শ্রীশ্রীবড়দা—তুমি যেমন ভাষা বল আর একজন আর একরকম। কবীর সাহেবের তখন খুব নাম—বহু জায়গায়। নৌকা করে এক সাধু আসছেন। কবীর সাহেব এক বটগাছ তলায় থাকতেন। কেউ কারও ভাষা জানে না, কিন্তু দেখামাত্রই দুজনে দুজনকে জড়ায়ে ধরেছে। সেই রকম সৎভাব থাকলে দুজনেই বুঝতে পারে । ইতর প্রাণীরাও বুঝতে পারে। সৎভাব বলতে বোঝায় ইষ্টভাব—you are for the Lord and so for others. এমনতর হলে ‘পর মনে হয় সবই ঠাকুরের। তাঁর যে সব তাই—তারা কতখানি আদরণীয় ও বরণীয়। তারপরে আসে প্রেম। ডালিমের যেমন রস হয়—ফেটে যায়। সবর্বভূতে তেমন প্রেম হয়।

[‘যামিনীকান্ত রায়চৌধুরীর দিনলিপি/তাং-২১/৩/৭৪ ইং]

[প্রসঙ্গঃ সত্যানুসরণ পৃষ্ঠা ১০৬-১০৭]