নেতা ও বীরত্ব নিয়ে সত্যানুসরণ

নেতা ও বীরত্ব নিয়ে সত্যানুসরণের পৃষ্ঠা নং ৫৪, ৫৫ তে শ্রীশ্রীঠাকুর বলেছেন…

যে আগে ঝাঁপ দিয়েছে, আগে পথ দেখিয়েছে, সেই নেতা ; নতুবা শুধু কথায় কি নেতা হওয়া যায়?

[উপরের “যে…যায়?” বাণীটির ব্যাখ্যা]

আগে অন্যের জন্য যথাসর্ব্বস্ব ঢেলে দাও, দশের পায়ে মাথা বিক্রয় কর ; আর, কারো দোষ ব’লে দোষ দেখা ভুলে যাও, সেবায় আত্মহারা হও, তবে নেতা, তবে দেশের হৃদয়, তবে দেশের রাজা। নতুবা ও-সব কেবল মুখে-মুখে হয় না।

[উপরের “আগে…না” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যদি নেতা হ’তে চাও, তবে নেতৃত্বের অহঙ্কার ত্যাগ কর, আপনার গুণগান ছেড়ে দাও, পরের হিতে যথাসৰ্ব্বস্ব পণ কর, আর যা’ মঙ্গল ও সত্য নিজে তাই ক’রে দেখাও, আর, সকলকে প্রেমের সহিত বল ; দেখবে হাজার-হাজার লোক তোমার অনুসরণ ক’রবে।

[উপরের “যদি..ক’রবে” বাণীটির ব্যাখ্যা]

নির্ভর কর, আর সাহসের সহিত অদম্য উৎসাহে কাজ ক’রে যাও, লক্ষ্য রেখো, তোমা হ’তে তোমার নিজের ও অন্যের কোনওরূপ অমঙ্গল না আসে। দেখবে সৌভাগ্যলক্ষ্মী তোমার ঘরে বাঁধা থাকবে।

[উপরের “নির্ভর…থাকবে” বাণীটির ব্যাখ্যা]

কথায় আছে “বীরভোগ্যা বসুন্ধরা”! তা’ ঠিক ; বিশ্বাস, নির্ভরতা আর আত্মত্যাগ এই তিনটিই বীরত্বের লক্ষণ।

[উপরের “কথায়…লক্ষণ।” বাণীটির ব্যাখ্যা]