বিশ্বাস প্রসঙ্গে সত্যানুসরণ

বিশ্বাস প্রসঙ্গে শ্রীশ্রীঠাকুর সত্যানুসরণের পৃষ্ঠা নং ৪১-৪৪ এ বিস্তারিতভাবে বলেছেন। তিঁনি বলেন…

যে-ভাব বিরুদ্ধ ভাব দ্বারা আহত বা অভিভূত না হয়, তাই বিশ্বাস।

[উপরের “যেভাব…বিশ্বাস” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাস না থাকলে দর্শন হবে কি করে?

[উপরের “বিশ্বাস..করে?” বাণীটির ব্যাখ্যা]

কৰ্ম্ম বিশ্বাসের অনুসরণ করে ; যেমনতর বিশ্বাস, কৰ্ম্মও তেমনতর হয়।

[উপরের “কর্ম্ম..হয়” বাণীটির ব্যাখ্যা]

গভীর বিশ্বাসে সবই হ’তে পারে। বিশ্বাস কর, —সাবধান ! অহঙ্কার, অধৈৰ্য্য ও বিরক্তি না আসে—যা’ চাও তাই হবে।

[উপরের “গভীর…হবে” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাসই বিস্তার ও চৈতন্য এনে দিতে পারে, আর অবিশ্বাস—জড়ত্ব, অবসাদ, সঙ্কীর্ণতা এনে দেয়।

[উপরের “বিশ্বাসই…দেয়” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাস যুক্তিতর্কের পার, যদি বিশ্বাস কর, যত যুক্তিতর্ক তোমার সমর্থন ক’রবেই ক’রবে।

[উপরের “বিশ্বাস…করবে” বাণীটির ব্যাখ্যা]

তুমি যেমনতর বিশ্বাস ক’রবে, যুক্তিতর্ক তোমায় তেমনতর সমর্থন ক’রবে।

ভাবেই বিশ্বাসের প্রতিষ্ঠা। যুক্তিতর্ক বিশ্বাসকে এনে দিতে পারে না। ভাব যত পাতলা, বিশ্বাস তত পাতলা, নিষ্ঠা তত কম।

[উপরের “ভাবেই…কম” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাস বুদ্ধির গণ্ডির বাহিরে ; বিশ্বাস-অনুযায়ী বুদ্ধি হয়। বুদ্ধিতে হাঁ-না আছে, সংশয় আছে ; বিশ্বাসে হাঁ-না নেই, সংশয় নেই।

[উপরের “বিশ্বাস…নেই।” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যার বিশ্বাস যত কম সে তত undeveloped (কাঁচা), বুদ্ধি তত কম তীক্ষ্ণ।

[উপরের “যার…তীক্ষ্ণ।” বাণীটির ব্যাখ্যা]

তুমি পণ্ডিত হ’তে পার, কিন্তু যদি অবিশ্বাসী হও, তবে তুমি কলের গানের রেকর্ডের কিংবা ভাষাবাহী বলদের মত নিশ্চয়।

[উপরের “তুমি…নিশ্চয়” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যার পাকা বিশ্বাস নেই, তার অনুভূতি নেই ; আর, যার অনুভূতি নেই, সে আবার পণ্ডিত কিসের?

[উপরের “যার…কিসের?” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যার অনুভূতি যতটা ; তার দর্শন, জ্ঞান ততটা ; আর জ্ঞানেই বিশ্বাসের দৃঢ়তা।

[উপরের “যার..দৃঢ়তা” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যদি বিশ্বাস না কর, তোমার দেখাও হয় না, অনুভব করাও হয় না। আবার, ঐ দেখা ও অনুভব করা বিশ্বাসকেই পাকা ক’রে দেয়।

[উপরের “যদি…দেয়” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যেরূপ আদর্শে তুমি বিশ্বাস স্থাপন ক’রবে, তোমার স্বভাবও সেইভাবে গঠিত হবে, আর তোমার দর্শনও তদ্রূপ হবে।

[উপরের “যেরূপ…হবে।” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাসীকে অনুসরণ কর, ভালবাস, তোমারও বিশ্বাস আসবে।

[উপরের “বিশ্বাসীকে…আসবে।” বাণীটির ব্যাখ্যা]

আমার বিশ্বাস নেই—এই ভাবের অনুসরণে মানুষ হীনবিশ্বাস হ’য়ে পড়ে।

[উপরের “আমার…পড়ে” বাণীটির ব্যাখ্যা]

বিশ্বাস নেই এমনতর মানুষ নেই। যার বিশ্বাস যত গভীর, যত উচ্চ, তার মন তত উচ্চ, জীবন তত গভীর।

[উপরের “বিশ্বাস…গভীর” বাণীটির ব্যাখ্যা]

যে সৎ-এ বিশ্বাসী সে সৎ হবেই; আর, অসৎ-এ বিশ্বাসী অসৎ হ’য়ে পড়ে।