নীতি বিষয়ে অনুশ্রুতি ১ম খন্ড (১-৫০)

অনুশ্রুতির ১ম খন্ডে “নীতি ” শিরোনামে পৃষ্ঠা ১ – ২০ পর্যন্ত মোট ১৪২ টি বাণী রয়েছে।
এর মধ্যে বাণী ১ – ৫০ নিচে দেয়া হলো।

নাক'রে যে পেতে চায়
দুঃখ তা'র পিছে ধায় । ১।
ভাবে বলে করে না
তা'র কেউ ধারে না। ২।
'হাঁ' বলাকে এড়িয়ে চলে
পারার ঝোঁকটি পড়েই ঢ'লে । ৩।
'না'র সাথে যা'র কোলাকুলি
'না'র বুকেতে পড়েই ঢুলি'। ৪।
ভাবে কয় করে না
আশা তা'র ফলে না । ৫।
দোষ-দেখা ঝোঁক গজালে ওরে
সেই দোষেতেই ধরবে তোরে । ৬।
শূন্যে যা'রা ঝোলে
পড়েই মাটির কোলে । ৭।
বলায় পটু কাজে কম
নিজেই হয় নিজের যম। ৮।
স্বভাব-দোষেই অভাব ঘটে
        সৎক্রিয়তায় বিভব বটে । ৯।
সৎক্রিয়তার বাড়া ঝোঁক
নিপাত যাক্ অভাব-রোগ। ১০।
কর্জ্জে দান সঙ্গতি নাই
বাড়বে শুধু ব্যর্থতাই। ১১।
গোলামী ক'রে বইলে জীবন
বংশ লোভী নয় বিচক্ষণ। ১২।
গোলামী ক'রে বইলে জীবন
বংশ হারায় চক্ষী চলন । ১৩।
ভাল কয়, ধরে না
দুর্দ্দশা ছাড়ে না। ১৪।
মান ভয়ে যা'র কপট চলন 
থামেই কিন্তু তা'র উন্নয়ন । ১৫।
বিপদ-কালেই আপদ-নীতি
তা' বিনে সে মরণ-নীতি । ১৬।
পেতে চাস্ তো দিতে থাকিস্ 
যে-অবস্থায় যেমন পারিস্ । ১৭।
বিপদ্ ভেবেই ঘাবড়ে যায়
জানিস্ আপদ্‌ তা'রেই খায়। ১৮।
যেটা নাই পেতে চায়
লোকে বেশী কয় তা'য়। ১৯।
অপাত্রে অযোগ্যে দান
দাতা গ্রহীতা দুই-ই ম্লান । ২০।
কর্ম্মহীন চিন্তা সৎ
পাথর-বাঁধা নরক-পথ। ২১।
শ্রদ্ধা-তপে যোগ্য যা'রা
দাবীর পুরণ পাবেই তা'রা। ২২।
অকৃতজ্ঞ দুর্বলের
সমর্থনই হয় পাপের। ২৩।
মননে করণে মিতালি নাই 
থাঁকতি জ্ঞানের সর্ব্বদাই। ২৪।
পণ ক'রে নেয়, দেয় না
শতেক দিলেও পায় না। ২৫।
বৃদ্ধিতে যা' হানি আনে
টেনে নেয় তা' নরক পানে। ২৬।
অপাত্রে দান সিদ্ধ নয়
ওতে কিন্তু বাড়ায় ভয়। ২৭।
লাভ না দিয়ে চাওয়ার দাবী
খাওয়ায়, খায় সে স্বতঃই খাবি। ২৮।
কথায় নীতি, কাজে নয়
ভণ্ডামিতেই তা'র ক্ষয়। ২৯।
না ভজালে নিন্দা-ঘোঁট
ধরে বিপাক, করে জোট। ৩০।
স্বভাব-গুণেই অভাব নষ্ট
এটা কিন্তু খাঁটি স্পষ্ট। ৩১।
পারাতে সন্দেহ যার
সে কি কভু করে?
পারগতা দূরে যায়
পথ যায় স'রে। ৩২।
বিপদে যদি বাঞ্ছা থাকে
বিপন্নতায় টান,
ভাল দেখে কাতর হ'তে
হ'য়ো রে আপ্রাণ । ৩৩।
যে-সংস্রবে শরীর-মনে
তোমার যেমন হয়,
অপরেরও ঠিক তেমনই
জেনো তা' নিশ্চয়। ৩৪।
অর্জ্জী যদি নাই হ'লি তুই
ভালমন্দ কী?
বিদ্যাবুদ্ধি লাখ থাকুক না
ছাইয়ে ঢালা ঘি। ৩৫।
হয় না যা'র—
পায় না সে,
ব্যর্থ জীবন
হা-হুতাশে। ৩৬।
অভাব যদি সুভাব ভাঙ্গে
ভাবটা হ'ল কী?
ভাবের নামে করলি যা' তুই
ঢাললি ছাইয়ে ঘি। ৩৭।
যেথায় যেটুক বললে তুমি
ফল পাবে সুন্দর,
সেইটুকুই তো ন্যায্য বলা
নইলে অবান্তর। ৩৮।
কী চাস্ আগে ঠিক ক'রে নে
দ্যাখ্ সোজা পাস্ কী ক'রে,
ওরে পাগল, বৃত্তি-মাতাল!
সৎভাবে চল্ তা'ই ধরে। ৩৯।
পথ খুঁজে তুই কাল হারালি
অনুষ্ঠানের মহড়ায়,
অনুষ্ঠানই বসলো পেয়ে
পাওয়া গেল গোল্লায়। ৪০।
বিধির নিয়ম পালবি যেমন
যতটা বা যতটুকু,
কেটে-ছেঁটে সব মিলিয়ে
পাবিও ফল ততটুকু। ৪১।
হিতের পথে মিষ্টি বোল
সুকৌশলী সমাধান,
সহ্য ক'রে কৃতী হওয়াই
কর্ম্মফলের অবসান । ৪২।
কারু স্তুতি করবে না যে
আপন কথায় ব্যস্ত,
হামবড়ায়ী আহম্মক সে
সকল সময় ত্রস্ত । ৪৩।
যা'-যা' করে চললে ভাল
সেই চলনে ধা'—
অমনতর ঠিক চলনে
আসেই সুবিধা। ৪৪।
প্রতিযোগিতায় ইতর অহং
মাথা তুলেই রয়,
প্রতিপূরণে আত্মপ্রসাদ
চিত্তপ্রসার হয়। ৪৫।
তালিম মত তাল মিলিয়ে
না চললে কোন তালে,
করার ফলটি শুকিয়ে ওঠে
না-পাওয়া ঘটে ভালে। ৪৬।
আগের করা কর্ম্ম যত
প্রসব ক'রে ফল,
ধায়ই জানিস্ জীবের পিছু
দিয়ে বলাবল। ৪৭।
আলোচনায় বুঝ-মীমাংসা
চাহিদা ওঠে জেগে,—
পাওয়ার মতন কর্ম্ম করায়
আগ্রহ ছোটে বেগে। ৪৮।
পাওয়ার ধ্যান তুই যতই করিস্
করার তপটি বাদ দিয়ে,
পাওয়ার আশা বন্ধ্যা ততই
নাকাল হ'বি খেদ নিয়ে। ৪৯।
সব সময়েই ভাল কথায়
হয় না সবার আনতি,
যদি তা'দের নাই রে থাকে
মন-অবস্থার সঙ্গতি । ৫০।